সেই গাড়ীতে চড়েই দ্বন্ধের অবসান, ইফতারে ঐক্যবদ্ধ আ‘লীগ

রাজনৈতিক ডেস্ক(আজকের নারায়নগঞ্জ):  অবশেষে মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত ইফতার মাহফিলের মাধ্যমে মনস্তাত্বিক দ্বন্দ্বের অবসান ঘটেছে  বর্তমান জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুল হাই এবং মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি আনোয়ার হোসেনের মধ্যে । দীর্ঘদিন পরে নারায়ণগঞ্জে ঐক্যবদ্ধ এক আওয়ামী লীগের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে মহানগর আওয়ামী লীগের ইফতার মাহফিলে।

সোমবার (২৭ মে) বিকেলে নগরীর ২নং রেলগেট এলাকায় আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে এ ইফতার মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

বৈচিত্র্যময় মহানগর আওয়ামী লীগের ইফতার মাহফিলে মহানগরের নেতাদের পাশাপাশি প্রাণবন্ত উপস্থিতি ছিলো জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের । থানা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ ও অংগসংগঠনের নেতৃবৃন্দও ছিলেন সেখানে।

ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠানের শুরুটাই হয় আনোয়ার হোসেন ও আব্দুল হাইয়ের দ্বন্দ্ব শুরু হয়েছিলো তার অবসানের মধ্য দিয়ে।

জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদের দ্বন্দ্ব শেষ পর্যন্ত আনোয়ার হোসেন নির্বাচিত হওয়ার পর গাড়ি দিয়ে বিরোধটি প্রকাশ্যে আসে। চেয়ারম্যান হিসেবে আব্দুল হাই সাবেক হওয়ার পরও নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনকে জেলা পরিষদের গাড়ি না বুঝিয়ে দেয়াই ছিলো দ্বন্দ্বের অন্যতম বিষয়। তবে মহানগর আওয়ামী লীগের ইফতার মাহফিলে সেই গাড়ির মাধ্যমেই দ্বন্দ্বের অবসান।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, মার্ক টাওয়ার থেকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাইকে মহানগরের ইফতার মাহফিলে আনতে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন পাঠিয়েছিলেন জেলা পরিষদের গাড়িটি। আর সেই গাড়িতে চড়েই আসেন আব্দুল হাই। শুধু তাই নয়, ইফতার মাহফিল শেষে সেই গাড়িতে করেই মার্ক টাওয়ারের বাসায় আব্দুল হাইকে পৌঁছে দেয়ার ব্যবস্থা করেন আনোয়ার হোসেন।

এ ঘটনার প্রভাব পড়ে মহানগরের ইফতার মাহফিলে। মহানগর আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের সাথে জেলা ও থানা পর্যায়ের মিলনমেলা একপর্যায়ে সম্মিলিত কর্মসূচি আয়োজনের মতোই প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে। জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি দুজনই বক্তব্যে নিজেদের সকল অনৈক্য ও ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যের ডাক দিয়েছেন।

ইফতার মাহফিলের আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের মানুষের সেবার ব্রত নিয়ে কাজ করতে শিখিয়েছেন। দেশ বাধাহীনভাবে উন্নতি করতে করতে এগিয়ে যাচ্ছে। জাতির জনকের স্বপ্ন পূরণের উদ্দেশ্য নিয়ে তার সুযোগ্য কন্যা থাইল্যান্ড সিঙ্গাপুরের মতো উন্নত দেশে আমাদের দেশকে পরিণত করার জন্য কাজ করছেন। তাই প্রধানমন্ত্রীর জন্য আমরা আজ বিশেষভাবে দোয়া করবো যাতে তিনি আমাদের দেশকে আরো সামনের দিকে এগিয়ে যান। আমরা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ এক আছি। এক থাকবো। সামনে আমরা আরো ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবো। নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগকে আরো শক্তিশালী করবো।

জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী ও জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনার হাত ধরে আজ আমাদের দেশ ও জাতি দুর্বার গতিতে উন্নতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। আমাদের দলের নেতাকর্মীদের মাঝে যাতে কোন বিভেদ না থাকে। আমরা যাতে ভাইয়ে ভাইয়ে এক থাকি।বড় দল হওয়ায় নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা থাকবে তবে সেটি যাতে কখনো বিভেদ না তৈরি করে। সকল ভেদাভেদ ভুলে আমরা এক হয়ে কাজ করবো।

ইফতার মাহফিলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য এড.আনিসুর রহমান দিপু, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মিজানুর রহমান বাচ্চু, এড.আসাদুজ্জামান আসাদ, আরজু রহমান ভূইয়া, যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড.খোকন সাহা, সহসভাপতি মাসুদুর রহমান খসরু, রোকনউদ্দিন আহমেদ, যুগ্ম সম্পাদক জিএম আরমান, আহসান হাবীব, সাংগঠনিক মাহমুদা মালা, জিএম আরাফাত, বন্দর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো.আবেদ হোসেন, মহানগর যুব মহিলা লীগের আহবায়ক নুরুন্নাহার সন্ধ্যা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।