বুড়িগঙ্গায় রেলওয়ের সেতু নির্মানকাজ বন্ধ করে দিল বিআইডব্লিউটিএ !

ফতুল্লা(আজকের নারায়নগঞ্জ): নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার বুড়িগঙ্গার তীরে অবৈধভাবে গড়ে তোলা একটি তিনতলা ভবন ও দুটি একতলা পাকা ভবনসহ ৬০টি অবৈধ স্থাপনা গুঁড়িয়ে দিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ ঢাকা নদীবন্দর।

এর মধ্যে কেরানীগঞ্জের কান্দাপাড়া এলাকায় বুড়িগঙ্গা নদীর ওপরে রেলওয়ের সেতু নির্মাণকাজ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এ সময় জব্দকৃত বালু ৫ লাখ ৭৩ হাজার টাকা নিলামে বিক্রি করে দিয়েছেন সংস্থাটির ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সোমবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত বিআইডব্লিউটিএর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে দ্বিতীয়দিনের মতো উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- বিআইডব্লিউটিএর যুগ্ম পরিচালক সাইফুল হক, উপপরিচালক মিজানুর রহমান, সহকারী পরিচালক রেজাউল করিম রেজা, নূর হোসেন ও উপসহকারী প্রকৌশলী আজিজুর রহমান প্রমুখ।

বিআইডব্লিউটিএ ঢাকা নদীবন্দরের সহকারী পরিচালক রেজাউল করিম রেজা বলেন, ফতুল্লা লঞ্চঘাট থেকে দাপা পর্যন্ত নদীর তীরে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। এ সময় একটি তিনতলা ভবন, দুটি একতলা ভবন, ১৫টি আধাপাকা ভবন, ৩৯টি টিনশেড ঘর, তিনটি বাউন্ডারি দেয়ালসহ সর্বমোট ৬০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়।

এছাড়া এক একর জমি অবমুক্ত করা হয়েছে। এ সময় জব্দকৃত বালু ৫ লাখ ৭৩ হাজার টাকায় নিলামে বিক্রি করা হয়।

এছাড়া কেরানীগঞ্জের কান্দাপাড়া এলাকায় বিআইডব্লিউটিএর অনুমোদন ছাড়াই বুড়িগঙ্গা নদীর ৩০০ ফুট অভ্যন্তরে বক্স কালভার্টের মাধ্যমে সেতু নির্মাণ করছিল রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। সোমবার ওই সেতুটির নির্মাণকাজ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাফিজুর রহমান আরও বলেন, নদীর নির্ধারিত সীমানার অভ্যন্তরে যারা অবৈধভাবে নদী দখল করেছে, উচ্চ আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে বুড়িগঙ্গা তীরের সব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে।

এর আগে অভিযানের প্রথমদিনে রোববার ফতুল্লার বালুরঘাট থেকে খেয়াঘাট পর্যন্ত অর্ধশতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে বিআইডব্লিউটি কর্তৃপক্ষ। ওই সময় জব্দকৃত বালু ১০ লাখ ৩২ হাজার টাকায় নিলামে বিক্রি করা হয়।