এনায়েতনগরে ইউপিতে ৫ কোটি ১৬ লাখ টাকার উন্নয়ন বাজেট

ফতুল্লা(আজকের নারায়নগঞ্জ): সদর উপজেলার এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদে যোগাযোগ খান উন্নয়ন ও ড্রেনেজ ব্যবস্থাসহ শিক্ষা খাতকে প্রাধণ্য দিয়ে ২০১৯-২০ সালে অর্থ বছরের ৫ কোটি ১৬ লাখ টাকার উন্নয়ন বাজেট ঘোষনা করেছেন।

শনিবার (২৫ মে) বিকেলে এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষনা করেন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান।

এদিকে উন্মুক্ত বাজেট ঘোষনায় আয় ব্যায়ের হিসাব সামঞ্জস্য রেখেই উন্নয়ন বাজেট ঘোষনা করা হয়। এসময় উপস্থিত লোকজন বিভিন্ন এলাকার সমস্যা নিয়ে বক্তব্য দিলে চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান তাৎক্ষনিক ভাবে সমস্যার সমাধানের আশ্বাস দেন।

বিশেষ করে বিভিন্ন এলাকার রাস্তাার পাশে ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় একটু বৃষ্টি হলে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয় বলে অনেকে আবেদন করেন।

এর জবাবে চেয়ারম্যান বলেন, এবারের বাজেটে ড্রেনেজ ব্যবস্থাকে প্রাধণ্য দিয়েই বাজেট ঘোষনা করা হয়। মানুষের ভোগান্তির অবসান নিয়ে বতর্মান সরকার কাজ করছেন।

বাজেট অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের সচিব দিদার হোসেন, এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন, আতাউর রহমান, আসমা আক্তার রিতা, ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য রুজিনা আক্তার, সাজেদা বেগম, আক্তার হোসেন, কামরুল হাসান, নিছার উদ্দিন, মো: ইসলাম, আব্দুল বাতেন তালুকদার, মীর আব্দুল আউয়াল ও সামসুল হক প্রমুখ।

বাজেট অনুষ্ঠানে চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান বলেন, বতর্মান সরকার সারা যেভাবে উন্নয়ন করছে তা শুধু আওয়ামীলীগ সরকার থাকায় তা সম্ভব। তার কারন বঙ্গবন্ধু আমাদের এ দেশটিকে সোনার বাংলা হিসাবে প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলন।

সেই বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে কাজ করে যাচ্ছেন। আর শেখ হাসিনাকে অনুস্মরণ করে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান নারায়ণগঞ্জকে একটি ডিজিটাল নগরী হিসাবে প্রতিষ্ঠা করতে কাজ করে যাচ্ছে।

শামীম ওসমানের উন্নয়নের চিন্তা মাথায় থাকার কারনে আমরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হয়ে তা সুফল পাচ্ছি। এনায়েতনগর ইউনিয়নের দিকে শামীম ওসমানের সু-নজর থাকার কারনে এতো উন্নয়ন হচ্ছে।

এনায়েতনগর ইউনিয়নের কোন একটি রাস্তা পাকা ছাড়া নাই। আমরা শামীম ওসমানের নির্দেশ মোতাবেক এলাকার উন্নয়নসহ জনগনকে সেবা প্রদান করছি।

তিনি আরো বলেন, যোগাযোগ খান উন্নয়ন ও ড্রেনেজ ব্যবস্থাসহ শিক্ষা খাতকে প্রাধণ্য দিয়ে ২০১৯-২০ সালে অর্থ বছরের ৫ কোটি ১৬ লাখ ৫১ হাজার ১৭৫ টাকার উন্নয়ন বাজেট ঘোষনা করা হয়েছে। আমরা জনগনকে সাথে নিয়ে উন্নয়নমূলক কাজ করে যেতে চাই।