ফতুল্লায় পল্লীচিকিৎসককে ব্লাকমেইলঃ ইউসুফ আটক,রুবেল পলাতক

ফতুল্লা(আজকের নারায়নগঞ্জ):  ফতুল্লায় পল্লী চিকিৎসক মিলন হোসেনকে আটকের পর ব্লাকমেইলিং করে বিকাশের মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নেয়ার ঘটনায় ব্লাকমেইলিং চক্রের অন্যতম সদস্য ইউসুফকে (৩৫) আটক করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) রাতে ফতুল্লার দাপা ইদ্রাকপুরস্থ রেলস্টেশন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ব্লাকমেইলিং চক্রের সদস্য ইউসুফকে আটক করা হয়।আটককৃত ইউসুফ ফতুল্লার দাপা ইদ্রাকপুরস্থ রেলস্টেশন এলাকার নুরু ঘটকের ছেলে। সে নিজেকে যুবলীগ নেতার পরিচয় দিয়ে নানা অপকর্ম করে বেড়ায় বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

ব্লাকমেইলিংয়ের শিকার ফতুল্লার মুসলিমনগর নয়াবাজার এলাকার মৃত আজহার আলীর ছেলে মিলন হোসেন। সে মুসলিমনগর নয়াবাজার এলাকায় বসবাস করে একজন পল্লী চিকিৎসক হয়ে একটি ঔষধের ফার্মেসী দিয়ে ব্যবসা করে আসছে।

অভিযোগ সূত্র ও পল্লী চিকিৎসক মিলন হোসেন জানান, গত ১২ মে দুপুরে মিলনের ঔষধের দোকানের জন্য ঔষধ ক্রয় করতে ঢাকায় যাওয়ার জন্য ফতুল্লা রেলস্টেশনে যায়। ট্রেন আসার অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় ৫-৬ জন লোক অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে রেলস্টেশনের প্লাটফর্মে নিয়ে যায়। তখন তারা কিছু বলার আগেই মিলনকে মারধর করতে থাকে এবং তার পকেটে থাকা ঔষধ কেনার ১০হাজার টাকা ও একটি স্বর্ণের আংটি নিয়ে যায়। এর পর নারী দিয়ে ফাসিয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে আরও ৫০হাজার টাকা দাবি করে। পরে মিলন তাদের ভয়ে বিকাশের মাধ্যমে তাহার আত্মীয়-স্বজনের মাধ্যমে ৩০হাজার টাকা এনে দিলে তাকে ছেড়ে দেয়।

তাদের হাত রক্ষা পেয়ে খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারে তারা ব্লাকমেইলিং চক্রের সদস্য। তারা ফতুল্লার রেলস্টেশনসহ আশে পাশের এলাকায় নারী দিয়ে ফাঁসানোসহ বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করে ব্লাকমেইল করে মানুষের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয়।

এ ঘটনায় মিলন হোসেন বাদী হয়ে ফতুল্লার দাপা ইদ্রাকপুর এলাকার শাহজামালের ছেলে রুবেল, নুরু ঘটকের ছেলে ইউসুফ, শাহার ছেলে সানী, শাহজালালের ছেলে জুয়েলকে আসামী করে ফতুল্লা মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে।

ফতুল্লা মডেল থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) হাসানুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, একজন পল্লী চিকিৎসককে আটকে ব্লাকমেইলিং করে বিকাশের মাধ্যমে টাকা নিয়ে মারধর করার ঘটনায় ইউসুফ নামের একজনকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে এবং অন্য ব্লাকমেইলারদের আটকের চেষ্টা চলছে।