এসপি হারুনের নির্দেশনায় ‘জঞ্জালমুক্ত ফুটপাত’ সক্রিয় ট্রাফিক পুলিশও

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্ক:   নারায়নগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদের নেতৃত্বে  নগরীর ফুটপাত জঞ্জালমুক্ত রাখতে ভূমিকা রেখে আসছে ট্রাফিক পুলিশ। ইতমধ্যে তারা নগরের বিভিন্ন এলাকায় ফুটপাত জনসাধারনের পথ চলাচলে উম্মুক্ত অভিযান শুরু করেছে।

এর মধ্যে বুধবার(১৫মে)  নগরীর চাষাঢ়া বাগে জান্নাত মসজিদ সংলগ্ন সুমাইয়া রেস্টুরেন্ট এন্ড চাইনিজ এর দখলে থাকা বিশাল ফুটপাত উচ্ছেদ করছে পুলিশ।  ট্রাফিক ইনচার্জ মো. শরফুদ্দিনের নেতৃত্বে এ অভিযানে অংশ নেয় সদর থানা পুলিশের একটি টিম। এ অভিযানে শহরের চাষাড়া ল্যাব এইড ডায়াগনেস্টিকের সামনে থেকে শুরু করে রামকৃষ্ণ মিশন পর্যন্ত সড়কের পাশে ফুটপাত দখল করে রাখা বিভিন্ন অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে।
এ সময় পুলিশ দেখতে পায় ফুটপাতের বিশাল একটি জায়গা দখল করে সুমাইয়া রেস্টুরেন্ট এন্ড চাইনিজ কর্তৃপক্ষ বাঁশ দিয়ে সামিয়ানা ও প্যান্ডেল করে ইফতারের পসরা সাজিয়ে পথচারীদের ভোগান্তির সৃষ্টি করছে। বিশেষ কায়দায় ফুলের টপ দিয়েও দখল করা হয়েছে পথচারীদের ব্যবহারের ফুটপাত। ফলে পাশে থাকা মসজিদের মুসল্লিসহ এই পথে চলাচলকারী সাধারণ মানুষের অনেক সমস্যা হত। এ উচ্ছেদের সময় ফুটপাতটি উদ্ধার করায় সাধারণ মানুষের মধ্যে ব্যপক স্বস্তি দেখা গিয়েছে, করেছেন অনেকে প্রশংসাও।

এছাড়াও সুগন্ধা, এটেঁল মাটিসহ বেশ কিছু হোটেলের মালিকরা দোকানের সামনে ফুটপাত জুড়ে ইফতার সামগ্রী সাজিয়ে রেখেছে। যার জন্য সাধারণ মানুষ ফুটপাত ছেড়ে সড়কে চলাচল করছে। এতে করে পথচারীদেরও চলাচলে সমস্যা হচ্ছে তাই ফুটপাতে যেন তারা এভাবে ব্যবসা না করে তাই সরিয়ে দেয়া হয়।

এর আগের দিন মঙ্গলবার(১৪মে) শহরের কালীরবাজার, চারারগোপ, হাইস্কুল রোড, মাজার রোড ও ডাকঘর রোড এলাকায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ চালিয়েছে জেলা ট্রাফিক ও সদর মডেল থানা পুলিশ।

জেলা ট্রাফিক বিভাগের ইন্সপেক্টর শরফুদ্দিনের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা এই অভিযান চালিয়ে প্রায় ৫শতাধিক অবৈধ দোকান রাস্তা থেকে উচ্ছেদ করে।

এতে কালীরবাজার মাজার রোডে ভাসমান ফলের দোকান, কালীরবাজার চশমা দোকান ও তালা দোকান, ডাকঘরের সামনে তুলা ও টেইলার দোকান, হাইস্কুলের সামনে দুই পাশে অবৈধ মশারী দোকান ও ফলের দোকান, টিএন্ডটি সামনে দুই পাশে কাপড়ের দোকান ও অবৈধ দোকানগুলো উচ্ছেদ করা হয়।

এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ ট্রাফিক ইনচার্জ মো. শরফুদ্দিন জানায়, জনসাধারণের যেন কোন সমস্যা না হয় এজন্য জেলা পুলিশ সুপারের কঠোর নির্দেশনা রয়েছে। তাই জনস্বার্থে এটা আমাদের নিয়মিত অভিযান ছিল। তাছাড়া যানজট নিরসনে আমরা দিন রাত কাজ করে যাচ্ছি। বিকেলে সড়কের পাশে ফুটপাতগুলোতে বেশ কিছু দোকানীকে দেখা যায় তারা সামিয়ানা টাঙ্গিয়ে রেখেছে।

তিনি আরো জানান,আসন্ন ঈদে জনসাধারণের অবাধ চলাচলে লক্ষ্যে যানজটমুক্ত রাস্তা রাখতে কোন দোকানপাট বসতে দেয়া হবে না।