এসপি হারুনের নির্দেশনায় ১০ ছিনতাইকারীর পরে লুণ্ঠিত মালসহ ৪ ডাকাত গ্রেফতার

 

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্কঃ নারায়ণগঞ্জ জেলার সুযোগ্য পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ, বিপিএম(বার), পিপিএম(বার) মহোদয়ের নির্দেশে নারায়ণগঞ্জে ১০ ছিনতাইকারী (পুরুষ ও মহিলা ছিনতাইকারী) পর ৪ ডাকাত গ্রেফতার ও লুন্ঠিত মালামাল উদ্ধার করেছে জেলা গোয়েন্দা শাখা।

জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয় থেকে প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় যে,গত মংগলবার(১৪মে) রাত ০৮:০০ ঘটিকা থেকে বুধবার(১৫মে) সকাল ০৯:০০ ঘটিকা পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ জেলার গোয়েন্দা শাখার একটি চৌকশ টিম ইন্সপেক্টর মোঃ গিয়াস উদ্দিন (পিপিএম) এর নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে গাজীপুরের টঙ্গীর বৌ-বাজার ও টঙ্গী রেললাইন বস্তি এলাকা থেকে ০৪(চার) জন ডাকাত গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত ডাকাতেরা হলো ০১। মন্টু ৥ ইব্রাহিম(৩০), পিতা-আঃ মতিন, গ্রাম-বিবির কান্দি, থানা-মাধবদী, জেলা-নরসিংদী, ২। সুমন(২৪), পিতা-মোহাম্মদ আলম, গ্রাম-জগন্নাথপুর, থানা-বানছারামপুর, জেলা-বি,বাড়িয়া, ০৩। লাল মিয়া(৫২), পিতা-আকবর আলী, গ্রাম-হাজী বাগান, থানা-শিবপুর, জেলা-নরসিংদী এপি টঙ্গী কোটবাড়ি বস্তি, থানা-টঙ্গী, জেএমপি গাজীপুর, ০৪। মোঃ সাগর আলী(৩৩), পিতা-মোঃ সাব্বির আলী, গ্রাম-যোগিসালন, থানা-বারহাট্টা, জেলা-নেত্রকোনা।

ডাকাতদের নিকট হতে লুন্ঠিত মোবাইল উদ্ধার করা হয়েছে। ডাকাতরা ডাকাতি করার কথা স্বীকার করে। বাকি লুন্ঠিত মালামাল উদ্ধারের জন্য অভিযান অব্যাহত আছে।

উল্লেখ্য যে, রুপগঞ্জ থানার মামলা নং-০২, তারিখ-০১/০৪/২০১৯, ধারা-৩৯৫/৩৯৭ পেনাল কোড এই ডাকাতি মামলাটির লুন্ঠিত মালামাল উদ্ধার হয় এবং উক্ত ডাকাতদেরকে উল্লেখিত মামলায় ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে বুধবার(১৫মে) আদালতে প্রেরণ করা হয়।

প্রসঙ্গত: গত ০৭/০৫/২০১৯ খ্রিঃ তারিখ হতে ৩১/০৫/২০১৯ খ্রিঃ তারিখ হতে নারায়ণগঞ্জ জেলার সুযোগ্য পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ, বিপিএম(বার), পিপিএম(বার) মহোদয়ের রমজান ও আসন্ন ঈদ উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জবাসী যেন নির্বিঘ্নে ও শান্তিতে চলাফেরা করতে পারে এবং নারায়ণগঞ্জ শহরকে আরো নিরাপদ শহর হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষে নিয়মিত অভিযানের অংশ হিসেব ডিবি পুলিশ সহ জেলা পুলিশের অন্যান্য সকল থানা কর্তৃক অভিযান পরিচালিত হচ্ছে।

ইহা ছাড়াও যানজট নিরসনের লক্ষ্যে সড়ক ও মহাসড়কে জনসাধারণের স্বাভাবিক চলাচল নিশ্চিত কল্পে জেলা বিশেষ শাখা, নারায়ণগঞ্জ কর্তৃক বিশেষ প্রোগ্রাম করা হয়েছে। সমস্ত নারায়ণগঞ্জ জেলার সকল সড়ক ও মহাসড়কগুলোকে চারটি সেক্টরে ভাগ করা হয়েছে। প্রতিটি সেক্টরকে ২ টি করে সব সেক্টরে ভাগ করা হয়েছে। উক্ত প্রোগ্রামে জেলা পুলিশ ও ট্রাফিক বিভাগ সম্বন্বয় করে কাজ করছে।