মনে লাঙ্গল পুষে মুখে নৌকার দাবী জানালে চলবেনা- আরজু ভূঁইয়া

সংবাদদাতা,বন্দরঃ নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর ও বন্দর) আসনে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশি আরজু রহমান ভূঁইয়া বলেছেন, মনের মধ্যে লাঙ্গল পুষে মুখে নৌকার দাবী জানালে চলবেনা। সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনা সহ মনোনয়ন বোর্ডকে জানাতে হবে কেন অত্র আসনে এবার নৌকা প্রতীক দেওয়া প্রয়োজন। সবার দাবী জোরালো হলে অবশ্যই দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনা অত্র আসনে নৌকার মনোনয়ন দিবেন।

ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন, ইন্টারনেট ও তথ্য প্রযুক্তির সকল উৎকর্ষ এগুলো যা দেখছেন তা শেখ হাসিনার সরকারের পরিশ্রমের ফসল। তাই শেখ হাসিনার উন্নয়ন কর্মকান্ডের প্রচারণা ঘরে ঘরে চালাতে হবে, আর তার ফলেই মানুষের নৌকার প্রতি আস্থা বাড়বে এবং সকলের ভোটে আবারও তিনি প্রধানমন্ত্রী হয়ে দেশের জন্য কাজ করতে পারবেন। বিএনপি দেশে জ্বালাও পোড়াও চালিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মেরেছে আর শেখ হাসিনা যুদ্ধাপরাধ, জঙ্গি ও মৌলবাদী মুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তুলেছেন।

তিনি আরও বলেন, আমি শেখ হাসিনার নির্দেশনা মোতাবেক নেতা-কর্মী ও গণমানুষের ডাকে অত্র আসনের বিভিন্ন প্রান্তে এ পর্যন্ত ৫০টি উঠান বৈঠক করেছি। নৌকার ও শেখ হাসিনার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি। আমি সুদীর্ঘ কাল থেকেই আওয়ামী লীগের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। আপনারা আমার সমন্ধে জানেন তাই যোগ্য মনে করলে আমার পক্ষে সমগ্র বন্দরে আওয়াজ তুলুন। বিভিন্ন জায়গায় প্রচারনা চালান, আলোচনার মাধ্যমে নিজেদের দাবীগুলো সুস্পষ্ট করুন। সকলের ইতিবাচক সাড়া পেলে নেত্রী ইনশাল্লাহ আমাকে মনোনয়ন দিবেন।

বন্দর উপজেলাধীন মদনপুর ইউপি’র ১নং ওয়ার্ড এর মদনপুর-বড়বাড়ি এলাকায় রশিদ মাস্টার সাহেবের বাড়িতে অত্র ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য আলহাজ্ব মোতালিব মিয়ার সভাপতিত্বে ৩০ জুন শনিবার বিকেলে অনুষ্ঠিত ৫০তম উঠান বৈঠকে আরজু রহমান ভূঁইয়া প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

বন্দর থানা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান মিয়া’র মনোমুগ্ধকর সঞ্চালনায় এ সময় বন্দর থানা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এম এ রউফ, মদনপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শুক্কুর আলী, সা. সম্পাদক নাজিম উদ্দিন, ত্রান ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুরুজ মিয়া, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক গহন আলী দেওয়ান, সদস্য পিয়ার আলী, মোজাম্মেল হক মুকুল, মুছাপুর ইউনিয়ন ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি শামসুল হক মাস্টার, বন্দর থানা যুব মহিলা লীগ নেত্রী মাফিয়া আক্তার তানিয়া, নাসিক ২১নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগ সভানেত্রী মায়ানুর আহেম্মদ মায়া, মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী সোমা আক্তার, পারুল আক্তার, শিউলী, মুন্নী দেওয়ান, বন্দর থানা যুবলীগ নেতা ইকবাল হোসেন ভূঁইয়া, মদনপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা জলিল মিয়া, যুবলীগ নেতা কাজী মাকসুদ, আল আমিন, রাব্বি, নাসিক ২৭নং ওয়ার্ড শ্রমিক লীগের সভাপতি এবাদুল্লাহ মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আলিম, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের মধ্য থেকে প্রফেসর এমদাদুল হক খোকন, প্রফেসর আফজাল হোসেন, সারোয়ার হোসেন কিরণ, রুবেল, ফজলুল হক, তোতা মিয়া, জামাল উদ্দিন, লেহাজ উদ্দিন, ওয়াহিদ ভূঁইয়া, রাহাত ভূঁইয়া, তানভীর সহ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, শ্রমিক লীগ, অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা ও স্থানীয় অসংখ্য গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত থেকে উঠান বৈঠককে সাফল্যমন্ডিত করেন।