প্রচন্ড তাপদাহেও রমজানের প্রথম জুম্মায় মুসল্লীদের ঢল

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্ক:  আজ শুক্রবার (১০ মে) চলতি বছরের রমজান মাসের প্রথম জুম্মা নামাজের দিন। এদিন জুমার নামাজের আগে থেকেই প্রচন্ড তাপদাহ উপেক্ষা করে নারায়ণগঞ্জের প্রতিটি মসজিদ পরিপূর্ণ হয়ে উঠে ধর্মপ্রান মুসুল্লিদের উপস্থিতিতে। সকলের উদ্দেশ্য ছিল মহান আল্লাহর দরবারে হাজিরা দেয়ার পাশাপাশি নিজের সকল অপরাধের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা ও নিজের জন্য কিছু চাওয়া। প্রতিটি মসজিদেই দেখা গেছে মুসুল্লিদের ভীড় চলে আসে সড়কে।

কারন রমজান মাস মানেই রহমত, বরকত ও মাগফেরাতের মাস। নাজাতের মাস এই রমজানে মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে নিজ নিজ অপরাধের মার্জনা চেয়ে গুনাহ মাফের এক বিশেষ সময় এই মাস। রমজান মাসে অন্য সকল সময়ের তুলনায় বরকত অনেক বেশি, এসময় একটি নেকীর কাজ করলে বান্দার আমলনামায় একটির পরিবর্তে ৭০টি নেকী পাওয়া যায় তবে একটি গুনাহের বিপরীতে লেখা হয় একটি অপরাধই।

তাই প্রতিটি মসজিদের নামাজের আগে বিশেষ বয়ান দেয়া হয় এবং নামাজের পর বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। মোনাজাতের মুসুল্লিদের বিভিন্ন গুনাহ উল্লেখ করে তার থেকে মুক্তি চাওয়া হয়। মৃত ব্যক্তিদের জন্য দোয়া করা হয়, অসুস্থদের জন্য দোয়া করা হয়, দেশ জাতি ও বিশ্ববাসীর শান্তি সমৃদ্ধি কামনায় দোয়া করা হয় এবং সমস্ত বিশ্বের মুসলিম উম্মাহের জন্য প্রার্থনা করা হয়।

নামাজের পর উক্ত মোনাজাতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন মুসুল্লিরা। সকলেই নিজ নিজ গুনাহের কথা স্মরণ করে এসময় আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করেন। বয়স্ক, যুবক,তরুণ ও কিশোর সকলকেই দেখা গেছে মোনাজাতে কান্নারত হয়ে সৃষ্টিকর্তার কাছে মার্জনা চাইতে।

নামাজের পর মুসুল্লিদের অনেকেই বিভিন্ন কবরস্থানে গিয়ে আপনজনদের কবর জিয়ারত করেছেন। এসময় কান্নাজড়িত হয়ে কবরের পাশে অনেকেই দোয়া দুরুদ পড়েন এবং কবরবাসীর জন্য জান্নাত ও নাজাত প্রার্থনা করেন। অনেকে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে কবরের পাশে কোরআনের বিভিন্ন আয়াত ও সূরা তেলাওয়াত করেন।