ফতুল্লায় ডাকাতির ঘটনায় গ্রেফতার স্বর্ন ব্যবসায়ী লক্ষন বর্মন

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্ক: ফতুল্লায় ডাকাতির মামলায় গ্রেফতার হয়েছেন  কালীরবাজারের স্বর্নব্যবসায়ী লক্ষন বর্মন। নারায়নগঞ্জ শহরের স্বর্ণপট্টিতে কার্তিক জুয়েলার্স, প্রিয়াংকা জুয়েলার্সসহ প্রায় ৬/৭টি জুয়েলারী দোকানের মালিক তিনি ।

বৃহস্পতিবার(৯ মে) সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ সদর থানা পুলিশের সহায়তায় ফতুল্লা থানা পুলিশের এসআই সালেকুজ্জামান গ্রেফতার করলে শহরের ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয় । শহরের রাঘব বোয়ালরা শুরু করে তদ্বির ।

মামলার বিষয়ে এসআই সালেকুজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, গত বছর ৬ সেপ্টেম্বর রাতে দারোগা জহিরের দাপা ইদ্রাকপুর আদর্শনগরস্থ বাসভবনে বৃদ্ধ মায়ের চোখে স্প্রে করে ডাকাতির ঘটনা ঘটে ।

এ ঘটনায় মামলা দায়েরর পর দীর্ঘ তদন্তে পুলিশে আসামী গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে আসামীরা জানায় মূলতঃ সারাদেশের চোরাই ও ডাকাতিকৃত স্বর্ণ কিনে রাখেন শহরের কালীরবাজার স্বর্ণপট্টির কার্তিক বর্মনের ছেলে লক্ষন বর্মন । কয়েক বছর যাবত এই চোরাকারবারীর ব্যবসা করে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন। নারায়ণগঞ্জ শহরের অর্ধ ডজন স্বর্ণ দোকান ছাড়াও বাড়ী, ফ্লাট, গ্রামের বাড়ী কুমিল্লায় বিশাল সম্পদের পাহাড়ও গড়ে তুলেছে এই লক্ষণ ও তার পরিবার ।

এরাকাবাসী জানান, মাত্র কয়েক বছরের আগেও যিনি ছিলেন একটি দোকানের সামান্য সেলসম্যান, পেটের দায়ে চাকরী করে কোন মতে জীবন নির্বাহ করতো, সেই সামান্য সেলসম্যান এখন কোটি কোটি টাকার মালিক ! কি করে এমন পরিবর্তন তা কেউ না জানলেও ফতুল্লা থানা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়ার পর বেড়িয়ে আসছে নানা চাঞ্চল্যকর তথ্য ।