রূপগঞ্জে সুমন মীরের ঝুলন্ত লাশের পাশে রক্তমাখা চিঠি!

রূপগঞ্জ(আজকের নারায়নগঞ্জ): রূপগঞ্জে সুমন মীর (৩৪) নামে এক ব্যবসায়ীর ঝুলন্ত লাশের পাশে ছিল রক্তমাখা চিঠি। পুলিশের প্রাথমিকভাবে ধারণায় মানসিক চাপের কারণে আত্মহত্যা করেছে। তবে  নিহতের পরিবারের দাবী  পরিকল্পিতভাবে হত্যা।

বুধবার (৮ মে) সকালে তারাব পৌরসভার রূপসী মীরবাড়ী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিজ ঘর থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত সুমন মীর মুরাপাড়া এলাকার জালাল উদ্দিনের ছেলে। নিহত সুমন মীর জন্মের পর থেকে তার মায়ের সাথে নানির বাড়ীতে বসবাস করে আসছেন। বাড়ীর পাশে মনোহরী; নামে একটি মুদি-দোকান রয়েছে তার।

এ ঘটনায় নিহতের মামা বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

নিহত সুমনের মামা আকবর হোসেন জানান, বুধবার সকালে ভাগিনা সুমনকে দোকানে দেখতে না পেয়ে তার ঘরে ডাকাডাকি করে। ডাকে সারাশব্দ না পেলে আকবর হোসেন সুমনের ঘরে গিয়ে তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায়। লাশের নিচে রক্তাক্ত লুঙ্গি ও একটি চিঠি, দেয়ালে রক্তে দিয়ে লেখা ছিল তার ছেলে, মেয়ে ও স্ত্রীর নাম। নিহত সুমনের পরিবারের দাবী পূর্ব পরিকল্পিতভাবে সুমনকে হত্যা করে তার লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে।
নিহত সুমনের স্ত্রী সোনিয়া দাবি তার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে। যারা হত্যা করেছে তিনি তাদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবী জানান।

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল হাসান বলেন, প্রাথমিকভাবে আত্মহত্যা মনে হচ্ছে। নিহত কিছুটা মানসিক চাপে ছিলো বলে জানাগেছে। বাকিটা ময়না তদন্তের রিপোর্টের উপর নির্ভরশীল। এ বিষয়ে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।