২০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবীঃচিহ্নিত সন্ত্রাসী মিজু ও মামুন গ্রেফতার

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্কঃ নারায়ণগঞ্জের চাষাঢ়াস্থ লুৎফা টাওয়ারের মালিক লুৎফর রহমানের কাছে ২০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করায় এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী মিজানুর রহমান মিজু ও মামুনকে গ্রেফতার করেছে সদর মডেল থানা পুলিশ।

ব্যবসায়ী লুৎফর রহমানের দায়েরকৃত মামলায় এদেরকে গ্রেফতার করে রবিবার (৫ মে) ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে কোর্টে প্রেরণ করা হলে নারায়ণগঞ্জের চীফ জুডশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ফয়সাল আতিক বিন কাদির আগামী ৯ মে রিমান্ড শুনানীর দিন ধার্য করে। মামলার অপর দুই আসামী আজিজুল হক শুভ ও মানিক পলাতক রয়েছে।

মামলার বিবরনে ব্যবসায়ী লুৎফর রহমান উল্লেখ করেন, আমি একজন ব্যবসায়ী। উল্লেখিত বিবাদীদের সাথে আমার পূর্ব শত্রুতা রয়েছে। নারায়ণগঞ্জের সদর থানাধীন র‌্যালিবাগানে আমার ৫৬ শতাংশ জমি এবং ফতুল্লা থানাধীন তক্কার মাঠে ১৫২ শতাংশ জমি দুটি জোরপূর্বক দখল করার পায়তারা করছে বিবাদীগন।

বিবাদীগন সদর থানাধীন বিবি রোডস্থ লুৎফা টাওয়ারের গলির পিছনে আমার ব্যবসায়ীক অফিসে এসে প্রায়ই আমার কাছে ২০ লক্ষ টাকা চাঁদা দেওয়ার জন্য হুমকি প্রদান করতো। আমি বিবাদীদের চাঁদা না দেওয়ায় আমার উক্ত জমি দুটিতে গিয়ে আমার গোডাউনের ভাড়াটিয়াদের এই বলিয়া হুমকি ধামকি দেয়ে যে, ‘এখন থেকে গোডাউনের ভাড়া বিবাদীদের দিতে হবে, কোন ভাড়াটিয়া যদি আমাকে ভাড়া প্রদান করে তাহলে বিবাদীগন আমার ভাড়াটিয়াদের প্রাণে মেরে ফেলবে এবং বিভিন্ন ক্ষতি করবে’। আমার ভাড়াটিয়াগন আমাকে বিষয়টি জানালে আমি বিবাদীগনকে এহেন কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ করি। কিন্তু বিবাদীগন আমার অনুরোধ না শুনিয়া প্রায় সময়ই আমার জমি দুটির গোডাউনের ভাড়াটিয়াদের গিয়ে হুমকি ধামকি দিয়ে আসছে।

তিনি আরো উল্লেখ করেন, হুমকি ধামকির এক পর্যায়ে নারায়ণগঞ্জ সদর থানাধীন বিবি রোডস্থ লুৎফা টাওয়ারের গলির পিছনে আমার ব্যবসায়ীক অফিসে এসে আমাকে না পেয়ে আমার ম্যানেজার মো: রমজান আলীকে মারপিট করে।

এই ঘটনার প্রেক্ষিতে ম্যানেজার রমজান আলী বাদী হয়ে বিবাদীগনের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় গত ৬ ফেব্রুয়ারী মামলা দায়ের করেন। বিবাদীগন এতও ক্ষান্ত না হয়ে তাদের দাবীকৃত চাঁদার জন্য আমাকে বিভিন্নভাবে হয়রানী করতে থাকে।

এরই ধারাবহিকতায় গত ২৭ এপ্রিল সন্ধ্যায় বিবাদীগন বেআইনী জনতাবদ্ধে দেশীয় অস্ত্র সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর থানাধীন বিবি রোডস্থ আমার ব্যবসায়ীক অফিসের ভিতরে অনুপ্রবেশ করে আমার নিকট বিবাদীদের পূর্বের দাবীকৃত ২০ লক্ষ টাকা চাঁদা চায় এবং চাঁদা না পেলে আমাকে প্রাণে মেরে হলেও আমার জমি দুটি দখল করবে মর্মে হুমকি প্রদান করে। তখন বিবাদীদের আমি চাঁদা দিতে অস্বীকার করিলে বিবাদীগন তার হাতে থাকা চাপাতি দিয়ে আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে মাথায় আঘাত করিতে গেলে আমার বন্ধু সাইদ বিবাদীর আঘাত প্রতিহত করে আমাকে রক্ষা করে।

আমাদের চিৎকার চেঁচামেতিতে আশেপাশের স্থনীয় লোকজন এগিয়ে এলে উল্লেখিত বিবাদীগন আমাকে ১৫ দিনের সময় বেঁধে দিয়ে এই বলে হুমকি প্রদান করে ‘তুই যদি চাঁদার টাকা না দিস, তাহলে তোর জীবনতো নিবোই সাথে তোর পুরো পরিবারের জীবন নেবো’ বলে চলে যায়।