রাত ১২টায় রোনালদো- সুয়ারেজ লড়াই

ক্রীড়া ডেস্কঃ একজন রিয়াল মাদ্রিদের প্রাণভোমরা। তার কাঁধে চড়েই চ্যাম্পিয়ন ট্রফির হ্যাটট্রিক শিরোপা অর্জন করে রিয়াল মাদ্রিদ। অন্যজন বার্সেলোনার অন্যতম সেরা ফরোয়ার্ড। আজকের দ্বৈরথটা পর্তুগাল ও উরুগুয়ের মধ্যে হলেও, আসল দ্বৈরথতো রিয়াল মাদ্রিদ-বার্সেলোনারও।

ফুটবলবিশ্ব আজ শনিবার ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো ও লুইস সুয়ারেজের দ্বৈরথ দেখার অপেক্ষায়। রোনালদোর বিশ্বকাপ দলের সতীর্থ ডিফেন্ডার আলভেস বৃহস্পতিবারই বলেছিলেন, সোচিতে শেষ ষোলোর ম্যাচটা রোনালদো-সুয়ারেজ লড়াইয়ের চেয়েও বড় কিছু। কারণ, স্প্যানিশ লিগের বহু যুদ্ধের ছায়া এই ম্যাচে দেখা যেতে পারে। কিন্তু সে সব পিছনে ফেলে রিয়াল মাদ্রিদের রোনালদো ও বার্সেলোনার সুয়ারেজের লড়াই নিয়েই বেশি আগ্রহ।

সুয়ারেজ অবশ্য তাঁর আর রোনালদোর লড়াই নিয়ে বেশি ভাবতে নারাজ। শনিবার সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘স্পেনিশ লিগে ক্রিশ্চিয়ানোর সঙ্গে যুদ্ধটা অন্য রকম। ওখানে দলের জন্য নিজেদের প্রমাণ করার তাগিদ থাকে। বিশ্বকাপে দেশের জন্য খেলি আমরা। দেশকে জেতানোই এখানে বেশি গুরুত্বপূর্ণ।’

লা লিগায় তাঁদের এই দ্বৈরথ দেখা গিয়েছে অনেক বার। তবে রোনালদো বনাম মেসির ছায়ায় সুয়ারেজ ঢাকা পড়ে গিয়েছেন বারবার। শনিবার মেসি মাঠে নামবেন আগেই, ফ্রান্সের বিরুদ্ধে। তাঁর পরীক্ষা শেষ হয়ে গেলে স্প্যানিশ ডার্বির ছোঁয়া লাগবে কৃষ্ণ সাগরের তীরে।

এই সোচি বেশ পয়া রোনালদোর কাছে। এখানেই প্রথম ম্যাচে স্পেনের বিরুদ্ধে হ্যাটট্রিক করে হইচই ফেলে দেন তিনি। পরের ম্যাচে মরক্কোর বিরুদ্ধেও ফের গোল করেন। কিন্তু শেষ ম্যাচে পেনাল্টিতে ব্যর্থ হন।

পাঁচ বারের ব্যালন ডি’অর জয়ী যে দুদিন আগেই পেনাল্টি থেকে গোল করতে না পেরে ভক্তদের হতাশ করেছেন, তা তাঁর অভিব্যক্তিতে এক বারও ফুটে ওঠেনি। বরং সেই চেনা মেজাজেই অনুশীলন করতে দেখা যায় তাঁকে। এ পর্যন্ত একটিও গোল না-খাওয়া উরুগুয়ের দুর্ভেদ্য ডিফেন্সের দেওয়াল ভাঙার কঠিন কাজ যে শনিবার করতে হবে তাঁকেই।

অন্য দিকে, লা লিগায় ২৫ গোল করে আসা সুয়ারেজ এই বিশ্বকাপে দু’গোল করেছেন। তবু বিশেষজ্ঞদের ধারণা, তাঁকে বিশ্বকাপে এখনও সেরা ফর্মে পাওয়া যায়নি। তবে উরুগুয়ের কোচ অস্কার তাবারেস আশাবাদী, ‘ও গোলের মধ্যে আছে যখন, তখন নক-আউটে নিশ্চয়ই আরও ভাল খেলবে। বড় ম্যাচেই তো বড় তারকারা ভাল খেলে।’