শ্রমিক অসন্তোষঃ সাকুরার ছাটাইকৃত ৪৫ শ্রমিকের পাওনা পরিশোধ

আজকের নারায়নগঞ্জঃ গার্মেন্টে সৃষ্ট শ্রমিক অসন্তোষের ঘটনায় সাকুরা গার্মেন্টসের ছাটাইকৃত ৪৫ জন শ্রমিককে টারমিশনের আওতায় এনে তাঁদের পাওনাদি বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। একই সাথে শ্রমিকদের উপর হামলার ঘটনায় সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগে ৮জন স্টাফকে সনাক্ত করে তাঁদেরকে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদানসহ চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

শ্রম-আইন অনুযায়ি টারমিশনের আওতায় এনে বৃহস্পতিবার (২৮ জুন) বিকেলে বিকেএমইএ কার্যালয়ে ওই পাওনা বুঝিয়ে দেয়া হয়। ৪৫ জন শ্রমিককে শ্রম-আইন অনুযায়ি মোট ১৪ লাখ টাকা পরিশোধ করা হয়েছে।

এসময় বিকেএমইএ’র পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন এর পরিচালক জিএম ফারুক, সাকুরা গার্মেন্টের পক্ষে ছিলেন ফ্যাক্টরীর ডিজিএম আলমগীর হোসেন খান সুমন, একাউন্টস অফিসার রবিউল, বিকেএমইএ’র লেবার সেকশনের যুগ্ম সচিব রঞ্জন রায় এবং শ্রমিকদের পক্ষে ছিলেন ইউনাইটেড অব ফেডারেশন অব গার্মেন্টস ওয়ার্কস এর নারায়ণগঞ্জ জেলার সহসভাপতি রফিকুল ইসলাম।

এর সত্যতা নিশ্চিত করেন ইউনাইটেড ফেডারেশন অব গার্মেন্টস ওয়ার্কাস এর নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন সেন্টু।

এ প্রসঙ্গে কাউসার আহম্মেদ পলাশ জানান, “৪৫ জন শ্রমিককে টারমিশনের আওতায় এনে তাঁদের পাওনা বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। ৮জন স্টাফকে শোকজ করা হয়েছে। তাঁদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এছাড়া যাঁরা আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি আছে তাঁদের পাওনা হাসপাতালে এসে দিয়ে যাবে। একই সাথে আহত শ্রমিকদের চিকিৎসা বাবদ খরচ কত দেয়া হবে তা আমরা হাসাপাতালের সাথে আলাপ করে মালিক পক্ষকে জানিয়ে দেবো। এরপর আমাদের প্রতিক্রিয়া আনুষ্ঠানিক ভাবে সন্ধ্যার পর ব্যক্ত করবো।”

শাহাদাৎ হোসেন সেন্টু জানান, “সেলিম ওসমান সাহেব যে আশ^াস দিয়েছিলেন সে মোতাবেক সাকুরার ঝামেলা শেষ হয়েছে। এ কারণে আমারা কোনো আন্দোলনে যাচ্ছি না। তবে, বাকি আরও যে ৭টি গার্মেন্ট ফ্যাক্টরী আছে সেগুলোর সমস্যা সমাধান করতে হবে। এ নিয়ে আলোচনা হবে। আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান হোকে আমরা সেটাই চাই।”

প্রসঙ্গত, রোববার ফতুল্লায় সাকুরা গার্মেন্টসহ ৬ থেকে ৭টি গার্মেন্টের শ্রমিকেরা বিভিন্ন দাবি দাওয়া নিয়ে বিক্ষোভ করে। এরপর দিন সোমবার সাকুরা গার্মেন্টে শ্রমিকেরা কাজে যোগাদানের সময় মালিক পক্ষের লোকজনের হামলায় অন্তত ২০জন শ্রমিক আহত হয়। এরপর এ ঘটনার সুষ্ঠু সমাধানের জন্য তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আশ^াস দিয়েছিলেন সেলিম ওসমান।