পেনাল্টি মিস,হলুদ কার্ড রোনালদোর,তারপরেও নকআউট পর্বে পর্তুগাল

ক্রীড়া ডেস্কঃ    ইরান ম্যাচ ভালো গেলো না ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর। পেনাল্টি মিস করলেন, হলুদ কার্ড দেখলেন। তবুও ম্যাচ ড্র করে পর্তুগাল শেষ ষোলোয় পৌঁছে গেল। ভাল খেলেও ছিটকে গেল ইরান।

সোমবার ম্যাচের প্রথমার্ধের শেষ লগ্নে ৪৫ মিনিটের মাথায় বক্সের বাইরে থেকে অনবদ্য শটে গোল করে দলকে এগিয়ে দিয়েছিলেন রিকার্দো কারেসমা। সেই অবস্থায় প্রথমার্ধে ইরানের বিরুদ্ধে ১-০ গোলে এগিয়ে দ্বিতীয়ার্ধে নামে পর্তুগিজরা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ৫১ মিনিটের মাথায় বক্সে রোনালদোকে ফাউল করে ইরানের ডিফেন্ডার। পেনাল্টি পায় ইউরোপের দলটি। স্পেন ম্যাচে পেনাল্টি থেকে দলকে গোল করে এগিয়ে দিয়েছিলেন সিআর সেভেন। এই ম্যাচেও সেরকম কিছুই আশা করেছিল গ্যালারি ভর্তি পর্তুগিজ দর্শক।

ভিএআর প্রযুক্তি ব্যবহার করে পেনাল্টি দেয়া হয়। পাঁচবারের ব্যালন ডি অ’র জয়ী এই তারকা সেইমতো পেনাল্টি শট মারতেও যান। তবে ইরানের গোলকিপার আলিরেজা রেইরানভান্দ অসাধারণ সেভ করে দেন। ফলে এদিন পেনাল্টি মিস করে আর এক কিংবদন্তি আর্জেন্টিনার অধিনায়ক লিওনেল মেসির সমগোত্রীয় হলেন রিয়াল মাদ্রিদের এই ফরোয়ার্ড। রোনালদোর চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আইসল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে পেনাল্টি মিস করেছিলেন। আর এদিন পর্তুগিজ দলপতি গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটির বিপক্ষে পেনাল্টি গোলকিপারের হাতে মারলেন।

এদিনটা রোনালদোর ছিলো না। খুব একটা ছন্দে ছিলেন না সিআর সেভেন। ম্যাচের ৮৪ মিনিটের মাথায় ফাউল করে বিপক্ষ খেলোয়াড়কে ‘গুঁতো’ দিয়ে হলুদ কার্ডও দেখেন। শেষ পর্যন্ত ম্যাচ হেরেও যেতে পারত ইউরোর বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।

৯৩ মিনিটের মাথায় ইরানকে পেনাল্টি থেকে গোল এনে দেন কারিম আনসারিফর্দ। এই পেনাল্টিও ভিএআর প্রযুক্তি ব্যবহার করেই নেয়া হয়। পরের মিনিটে আরেকটি বিশাল সুযোগ মিসও করতে হয় পার্সিয়ানদের।

অবশেষে খেলা শেষ হয় ১-১ গোলে। ৫ পয়েন্ট নিয়ে পর্তুগাল পরের রাউন্ডে ওঠে। ইরান ৪ পয়েন্ট নিয়ে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যায়।