দাপুটে রাশিয়াকে মাটিতে ফেলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়ে

ক্রীড়া ডেস্ক :  টানা দুই জয়ে দুই দলই শেষ ষোলোর টিকিট নিশ্চিত করেছিল আগেই। সোমবার উরুগুয়ে-রাশিয়া ম্যাচটা ছিল গ্রুপসেরা হওয়ার লড়াই। যেখানে প্রথম দুই ম্যাচে দাপুটে জয় পাওয়া রাশিয়া পাত্তাই পায়নি। স্বাগতিকদের ৩-০ গোলে হারিয়ে ‘এ’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হয়েছে উরুগুয়ে।

১৯৭০ বিশ্বকাপের পর এই প্রথম রাশিয়াকে হারাল দক্ষিণ আমেরিকার দেশটি।

এদিন সামারা অ্যারেনায় আগের ম্যাচ থেকে শুরুর একাদশে চারটি পরিবর্তন এনেছিলেন উরুগুয়ের কোচ অস্কার তাবারেজ। গোলের দেখা পেতে বেশি সময় লাগেনি বিশ্বকাপের প্রথম আসরের চ্যাম্পিয়নদের।

ম্যাচের দশম মিনিটে দারুণ এক ফ্রি-কিকে গোল করে দলকে লিড এনে দেন লুইস সুয়ারেজ। এবারের আসরে বার্সেলোনার স্ট্রাইকারের এটি দ্বিতীয় গোল।

সব মিলিয়ে বিশ্বকাপে সুয়ারেজের গোল হলো সাতটি। বিশ্বকাপে উরুগুয়ের হয়ে তার চেয়ে বেশি গোল আছে শুধু অস্কার মিগুয়েজের (৮)।

এবারের বিশ্বকাপে সরাসরি ফ্রি-কিকে গোল হলো এ নিয়ে ছয়টি, যা ২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপে পুরো টুর্নামেন্টের চেয়ে একটি বেশি!

২৩ মিনিটে রাশিয়ার ডেনিস চেরিশেভের আত্মঘাতী গোলে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় উরুগুয়ে। ১৯৬৬ সালের পর এই প্রথম বিশ্বকাপের কোনো ম্যাচে প্রথমার্ধে দুই গোল করল উরুগুয়ে।

৩৮ মিনিটে বড় ধাক্কা খায় স্বাগতিক রাশিয়া। দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন এবারের আসরে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামা ডিফেন্ডার আইগোর স্মোলনিকোভ।

২০১০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার ইতুমেলেং খুনের পর প্রথম কোনো স্বাগতিক দেশের খেলোয়াড় বিশ্বকাপে লাল কার্ড দেখলেন।

দ্বিতীয়ার্ধে সুযোগ পেয়েও গোল পাচ্ছিল না উরুগুয়ে। অবশেষে নির্ধারিত সময়ের শেষ মিনিটে গোল করে স্কোরলাইন ৩-০ করেন এডিনসন কাভানি। দিয়েগো গডিনের হেড গোলরক্ষক ফিরিয়ে দিলে কাছ থেকে জালে পাঠান পিএসজির এই ফরোয়ার্ড। প্রথম দুই ম্যাচে আট গোল করা রাশিয়া দিন আর গোলের দেখা পায়নি।