“বিদগ্ধতার সাক্ষী

– মোহাম্মদ ইউনুস

প্রাণ সঞ্চারিণীর অস্তিত্বের
উত্তপ্ত সমূদ্রের বন্দীত্ব থেকে মুক্ত
সদ্য প্রস্ফুটিত একটি গোলাপ,
শৈশব -কৈশর -যৌবনের চৌষট্টিটি বছর
পেছনে ফেলে
ছুটছে —শুধু ছুটছে অধরা ধরায়।

সৃজন মাখা অজানা অচেনা
গন্তব্য বিহীন
পিচ্ছিল পথচলার শেষ কোথায় জানেনা,
নিয়মের উর্ধে উঠে আকাশের ছোঁয়ায়
নিজেকে যেন হারায় বারে বারে।

কোথাও উঁচু কোথাও নীচু
কোথাও সমতল
কোথাও বা মুক্ত বিহঙ্গ – একা,
পেছনে ফেলে আসা বিদগ্ধতার সাক্ষী হয়ে
ধারণ করে জগতের তাবৎ সুন্দর্য।

আত্মতৃপ্তির বন্ধ জানালায় দাঁড়িয়ে
বিষন্নতার মাঝেও উলঙ্গ সভ্যতার বাস্তবতা মাখা
বিশাল ঢেউ,
একরাশ বাঁধ ভাঙ্গা উচ্ছলতাও
ক্যানভাসে বারতা দেয় অনিমেষে।

প্রাণ সঞ্চারিনীর বুক ভরা
আশার আলোয়
নীভু নীভু প্রদীপও যেন উদ্দিপ্ত
স্রোতোস্বীনি বহমান নদীতটে
বাঁধা এক তরী।