পরাজয়ের ভয়ে গাজীপুর সিটি নির্বাচন স্থগিত করেছে সরকার

স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতার রিটের প্রেক্ষিতে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন স্থগিত করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে সিপিবি। দলটির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম আজ এ উপলক্ষে এক বিবৃতি দেন।

বিবৃতিতে তারা বলেন,‘স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় কর্তৃক সাভারের শিমুলিয়ার ছয়টি মৌজাকে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনে অন্তর্ভুক্ত করে প্রজ্ঞাপন জারি করে। এর দুই মাস পর এবং নির্বাচনী তফসিল অনুযায়ী ভোট গ্রহণের মাত্র ৯ দিন আগে আওয়ামী লীগ নেতার রিটের প্রেক্ষিতে নির্বাচন স্থগিত করা হয়। এতে জনগণের মধ্যে এই ধারণাই স্পষ্ট হয়েছে যে, নির্বাচনে পরাজয়ের আশঙ্কায় ক্ষমতাসীন দল ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে নির্বাচনের মতো গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন স্থগিত করে দিয়েছে।’

বিবৃতিতে আরও বলেন, নির্বাচন কমিশন কোনোভাবেই তার দায়িত্ব এড়াতে পারে না। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পূর্বেই এই সমস্যার নিষ্পত্তি করার বাঞ্ছনীয় ছিল। এই স্থগিতাদেশ নির্বাচন কমিশনের যোগ্যতা ও ক্ষমতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। একইসঙ্গে নির্বাচন কমিশন জনগণের কাছে আরও অগ্রহণযোগ্য হয়ে পড়ল।

জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে একটার পর একটা নির্বাচন স্থগিত করার বিষয়টি ক্ষমতাসীন দলের দুরভিসন্ধি প্রকাশ করছে। নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার আশঙ্কায় আতঙ্কিত আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার ছকবদ্ধ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পাঁয়তারা করছে এবং দেশকে গভীর সংকটের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। জনগণকে ঐক্যবদ্ধভাবে সব চক্রান্তের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে বলে বিবৃতিতে বলা হয়।