হৃদয়বিদারক ১৬ জুনঃ ১৭ বছরেও সনাক্ত হয়নি রহস্যময় মহিলার পরিচয়

 

আজকের নারায়নগঞ্জ: ২০০১ সালের ১৬ জুন চাষাড়া আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা হামলার ঘটনা শুধু নারায়নগঞ্জ নয় পুরো বাংলাদেশ এমনকি সমগ্র বিশ্বেও বিষাদ ছড়িয়ে পড়েছিল। এ ঘটনায় এক সাথে ২০ জন মানুষ নিহত হয়েছিলেন । এদিন তৎকালিন নারায়ণগঞ্জ (সিদ্ধিরগঞ্জ-ফতুল্লা)-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের পূর্বনির্ধারিত গণসংযোগ কর্মসূচি ছিলো।

পৌনে ৯টার দিকে চালানো হয়েছিলো বর্বরোচিত ওই বোমা হামলা। এই বোমা হামলার পর এক দুই তিনি করে ১৭ বছর পূর্ণ হলো। সেদিনের সেই বোমা হামলায় একজন অজ্ঞাত মহিলাসহ আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগি সংগঠনের ২০ জন নেতাকর্মী নিহত হয়। আহত হয়েছিলেন শামীম ওসমানসহ অন্তত অর্ধশতাধিক। ওই ঘটনায় পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন শামীম ওসমানের ব্যক্তিগত সহকারি (সাবেক) এবং বর্তমান নারায়ণগঞ্জ জেলা ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির আহ্বায়ক চন্দন শীল ও রতন।

এদিকে সেদিনের সেই ঘটনায় নিহত হওয়া অজ্ঞাত মহিলা কে ছিলেন? কোথা থেকে এসেছিলেন তিনি? এর কোনো খোঁজ এই ১৭ বছরেও মিলে নি। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনী আজও পর্যন্ত তাঁর পরিচয়, ঠিকানা, এখানে আসার কি কারণ ছিলো- তার সন্ধান আজও দিতে পারেনি।

শুধু তাই নয়, আওয়ামী লীগ দলীয় নেতাকর্মীরাও জানেন না ওই মহিলাটি কে ছিলেন? এমনকি আজও পর্যন্ত ওই মহিলার কোনো স্বজনও খোঁজ করেনি তাঁকে। যার ফলে অজ্ঞাত সেই মহিলা আজও অজ্ঞাতই রয়ে গেছেন। রেখে গেছে কিছুটা রহস্যও। তবে এই অজ্ঞাত মহিলাটি কে ছিলেন, তা জানার যে আগ্রহ, কৌতূহল মানুষের মাঝে তা বুঝি আর কখনোই শেষ হবার নয়।

যদিও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা বলেছিলেন, ঘটনার দিন শামীম ওসমানের পূর্বনির্ধারিত গণসংযোগ কর্মসূচি ছিলো। এই কর্মসূচিতেই হয়তো কারো সাথে না কারো সাথে ওই মহিলা এসেছিলেন। তারপরও প্রশ্ন থেকে যায়, মহিলাটি যদি কারো সাথে এসেই থাকেন তাহলে তিনি নারায়ণগঞ্জের হবেন। আর সে হলেও তাঁর পরিবার থেকে কেউ না কেউ তাঁকে খুঁজতে আসতেনই। কিন্তু দীর্ঘ ১৭ বছরেও কেউ তাঁর খোঁজ নেননি।