শাকিব যাচ্ছেন ওমরায় আর কলকাতায় শুটিংয়ে অপু

বিনোদন ডেস্কঃ অপু বিশ্বাস এতদিন বলে আসছিলেন তিনি কলকাতা বা যৌথ প্রযোজনার সিনেমাতে অভিনয় করবেন না। কিন্তু হুট করেই তিনি তার সিদ্ধান্ত পাল্টে ফেলেছেন। অনেকটা গোপনেই ওপার বাংলার একটি সিনেমাতে অভিনয় করতে গত ৪ জুন অপু গিয়েছিলেন কলকাতায়। কলকাতার ওই সিনিমোর নাম ‘শর্টকার্ট’। ওপার বাংলার জনপ্রিয় সংগীতকার নচিকেতার গল্প ও সংগীতায়োজনে নির্মাণাধীন এই সিনেমাতে তিনি একজন মুসলিম তরুণীর ভূমিকায় অভিনয় করছেন। তার চরিত্রের নাম নূরজাহান। ৫ জুন থেকে কলকাতার বিভিন্ন লোকেশনে শুরু হয়েছে শুটিং।

বিষয়টি নিয়ে অপু বলেন, ‘চমৎকার একটি গল্পের সিনেমাতে কাজ করছি। নচিকেতা দাদা অনেক আগেই এই সিনেমার গল্পটি আমাকে শুনিয়েছেন এবং আমাকে সিনেমাটিতে কাজ করার জন্য অনুরোধ করেন। এ ধরনের গল্প পেলে কলকাতার সিনেমাতেও নিয়মিত অভিনয় করতে চাই।

তিনি আরও বলেন, সিনেমার গল্পে দেখানো হয়েছে ‘কলকাতাকে আমরা যেভাবে দেখি শহরটি ঠিক তাই নয়, এর বাইরে একটি গভীর স্তর রয়েছে। সবার মধ্যে একটি শর্টকার্ট প্রবণতা দেখা যায়। এতে কেউ ব্যর্থ আর কেউবা সফল হয়। এ সময়ের প্রেক্ষাপটে দাঁড়িয়ে দুটো আলাদা আর্থ-সামাজিক অবস্থার দুই যুবকের গল্পে নির্মিত হচ্ছে সিনেমাটি।

সিনেমাটি পরিচালনা করছেন সুবীর মণ্ডল। প্রথম লটের কাজ শেষ করে ঈদের দুদিন আগে ঢাকা ফিরবেন অপু বিশ্বাস। ঢাকায় ফিরে ঈদের পর দেবাশীষ বিশ্বাসের ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ টু’ সিনেমাতে অভিনয় করবেন অপু।

এদিকে ঢালিউডের শীর্ষ নায়ক শাকিব খান এখন ব্যস্ত দুই বাংলার সিনেমা নিয়ে। বর্তমানে তিনি কলকাতার ‘মাস্ক’ সিনেমার শুটিংয়ে সেখানে রয়েছেন। একটানা কাজ করতে গিয়ে বেশ ক্লান্ত শাকিব। তবে ঈদের পর পরই পবিত্র ওমরাহ পালনে যাবেন এই নায়ক।

এদিকে শাকিব খান এখন দুই বাংলার প্রায় অর্ধডজন সিনেমার কাজ নিয়ে দেশ-বিদেশে চরম ব্যস্ততায় দিন কাটাচ্ছেন। গত সপ্তাহে কক্সবাজারে ‘ক্যাপ্টেন খান’ সিনেমার টানা শুটিং করে বুধবার উড়াল দেন কলকাতায়। সেখানে এখন তিনি ‘মাস্ক’ সিনেমার শুটিং করছেন। ঈদের আগে ফিরবেন ঢাকায়।

দীর্ঘদিন একটানা কাজ করতে গিয়ে ক্লান্ত শাকিব বলেন, ইচ্ছা আছে ঢাকায় পুত্র জয়ের সঙ্গে ঈদ কাটিয়ে ঈদের পর পরই ওমরাহ পালনে সৌদি আরব যাব। সেখান থেকে এসে হাতে থাকা বাকি কাজগুলো সেরে ক্লান্তি দূর করতে ঈদুল আজহার পর চলে যাব আমেরিকা ও কানাডায়। সেখানে দীর্ঘ অবকাশ যাপন করব।

শাকিব আরও বলেন, শুধু কাজ আর অর্থের পেছনে ছুটলে চলবে না। মনকে আনন্দ আর শরীরকে বিশ্রাম দেওয়াটাও জরুরি। তাই এবার ঈদুল আজহার পর বিদেশ গিয়ে ক্লান্তি ঝেড়ে একটু ফুরফুরে হতে চাই। সেখান থেকে ফিরে এ বছরের মধ্যে কাজের একটি নতুন ছক তৈরি করব। আগামী বছর হবে নিজেকে গোছানোর সময়। নিজের প্রযোজনা সংস্থা থেকে নিয়মিত প্রযোজনা ও অভিনয় করব আর বাইরের কাজের পরিমাণ কমিয়ে দেব। আগামী বছর পুরোদমে সংসারী হতে চাই।