কাঠেরপুলে মেট্টো গার্মেন্টসে ভূত আতঙ্কে নারী শ্রমিক অজ্ঞান!

ফতুল্লা(আজকের নারায়নগঞ্জ): ফতুল্লার কাঠের পুল এলাকায় মেট্রো নিটিং এন্ড ডাইং ফ্যাক্টরির বাথরুমে বিলকিস বেগম নামে এক নারী অজ্ঞান হয়ে পড়ার ঘটনায় তুলকালাম কান্ড ঘটেছে। এ সময় ভূত আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লে শ্রমিকরা এদিক-ওদিক ছোটাছুটি শুরু করেন।

পরবর্তীতে অন্যান্য শ্রমিকরা বাথরুমের দরজা ভেঙ্গে বিলকিস বেগমকে উদ্ধার করতে গিয়ে আরো ৬ নারী শ্রমিক অচেতন হয়ে পড়ে। ঘটনা ছড়িয়ে পড়লে হুলস্থুল পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। পরে ফতুল্লার শিল্প পুলিশের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌছে শ্রমিকদের শান্ত করলেও পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে মালিক কর্তৃপক্ষ কারাখানাটি ছুটি ঘোষণা করা হয়।

বুধবার (৩১ অক্টোবর) সন্ধ্যায় ফতুল্লার মেট্রো নিটিং এন্ড ডাইং ফ্যাক্টরিতে এ ঘটনা ঘটে।

এদিকে নারী শ্রমিক বিলকিস বেগমকে ঘটনার পর নগরীর খানপুর ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাকে বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

শ্রমিকেরা জানান, সন্ধ্যার সময় বিলকিস নামে সপ্তম তলার এক সুইং অপারেটর টয়লেটে প্রবেশ করেন। এসময় দরজার লক নিচ থেকে উপরে উঠে যায়। এতে দরজা বন্ধ হয়ে গেলে বিলকিস বাঁচাও বাচাঁও করে চিৎকার করতে থাকে। তখন আশপাশ থেকে নারী শ্রমিকেরা দৌড়ে টয়লেটের কাছে গিয়ে দরজা ভাঙ্গার চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে দরজা ভেঙ্গে বিলকিসকে উদ্ধারের সময় বিলকিস সহ অন্তত ৬ জন নারী শ্রমিক অচেতন হয়ে ফ্লোরে পড়ে যায়। এতে কারখানায় কর্মরত অন্যান্য শ্রমিকদের মধ্যে ভূত আতংক ছড়িয়ে পড়ে। পরে খবর পেয়ে মালিক পক্ষের লোকজন ছুটে গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে নিজস্ব চিকিৎসক দিয়ে ৫জনকে চিকিৎসা দিলেও বিলকিসকে ৩০০শয্যা হাসপাতালে নিয়ে যায়।

ফতুল্লার শিল্প পুলিশ পরিদর্শক মো. জাহাঙ্গীর আলম সাংবাদিকদের জানান, বিলকিস নামে এক শ্রমিক বাথরুমে অজ্ঞান হয়ে যান। পরবর্তীতে তাকে বাথরুমের দরজা ভেঙ্গে বের করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। জানতে পেরেছি, প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ভূতে মেরে ফেলেছে বলে একটা গুজব ছড়িয়ে পরে শ্রমিকদের মধ্যে। এ নিয়ে একটা ভীতির তৈরি হয় তাদের মধ্যে। আসলে ভূত না। ওটা একটা গুজব ছিল।