রূপগঞ্জে আসামী ধরার নামে মধ্যরাতে তান্ডব,লুটপাট,বৃক্ষকর্তন,ভাংচুর!

রূপগঞ্জ(আজকের নারায়নগঞ্জ): নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে আসামী ধরার নামে পুলিশ নিয়ে মধ্যেরাতে একটি গ্রামে তান্ডব চালিয়েছে প্রতিপক্ষের লোকেরা। তারা স্বসস্ত্র অবস্থায় গ্রামের অন্তত ৮ বাড়িতে হামলা করে ব্যাপক ভাংচুর লুটপাটসহ ৭ জনকে পিটিয়ে জখম করে। কেটে ফেলে দুটি কলাবাগান। এই ঘটনার প্রতিবাদে গ্রামের নারী পুরুষরা সংঘবদ্ধ হয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেন। গত শুক্রবার গভীর রাতে উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়নের খৈসাইর গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।
গ্রামবাসীরা জানান, খৈসাইর এলাকার আওয়ামীলীগ নেতা গোলজার হোসেনের সাথে রূপগঞ্জের তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী, ১৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী ও আবুল বাহিনীর প্রধান আবুল হোসেনের পূর্ব শত্রুতা ছিল। এই ঘটনার জেরে আসামী ধরার নাম করে আবুলসহ তার বাহিনীর সদস্য মালেক,ইয়ারাহিম, ছোটন, সাহেদ,তাইজুল, মোমেন, রাজন, সিফাতসহ অন্তত ৩০/৪০জন দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে শুক্রবার রাত ১ টার দিকে ভোলাব পুলিশ ফাঁড়ির লোকজন নিয়ে খৈসাইর গ্রামে প্রবেশ করে। তারা গ্রামের ইমন মিয়া, আব্দুর রহমান, গোলজার হোসেন, হারেজ আলী, সৈকত মিয়া, নাজমুল হোসেন, রাজন ও হারিজুলের বাড়িতে প্রবেশ করে রামদা ও চাইনিজ কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করে।

এ সময় তারা হারেজ আলী ও আব্দুর রহমানের ঘরের আলমারী ভেঙ্গে নগদ সাড়ে ৩ লাখ টাকা, সাড়ে ১১ ভরি স্বর্ণলংকারসহ অন্তত ১২ লাখ টাকার মালামাল লুটপাটসহ গ্রামের অন্তত ২৫ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি করে। এসময় হামলাকারীরা সাইফুল ও গোলজারের রোপন করা কলাবাগানের শতাধিক গাছ কেটে ফেলে। পিটিয়ে জখম করে হারিজুল, শরিফ, নাজমুল, আবির, ইউছুফসহ ৭ ব্যক্তিকে। আহতদের কালীগঞ্জ সদর হাসপাতালসহ স্থানীয় পর্যায়ে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

গ্রামবাসীর অভিযোগ পুলিশ এ হামলায় ইন্ধন জুগিয়েছেন। এই ঘটনার প্রতিবাদে শনিবার বিকেল ৪টার দিকে খৈসাইর গ্রামের নারী পুরুষ সংঘবদ্ধ হয়ে হামলাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল করেছেন। হামলার ঘটনায় হারেজ আলী ও আব্দুর রহমান বাদি হয়ে রূপগঞ্জ থানায় পৃথক দুটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।
এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মনিরুজ্জামান বলেন, পুলিশের উপস্থিতিতে একজন পলাতক আসামী গ্রামে হামলা করবে এমনটা অকল্পনীয়। আমি খোজ নিচ্ছি, যদি এ ধরনের ঘটনা ঘটে থাকে তাহলে দায়ী প্রত্যেক পুলিশের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে। আর হামলা ঘটনায় পৃথক দুটি অভিযোগ পেয়েছি। যে কোন একটি এজাহার নিয়মিত মামলা হিসেবে রুজু করবো আমরা।