তিনি ভেবেছেন আমরা আহাম্মক!লেমন চুস খাই-শামীম ওসমান

রাজনৈতিক ডেস্ক(আজকের নারায়নগঞ্জ):  নারায়নগঞ্জ-৪ আসনের এমপি  নারায়নগঞ্জ তথা সমগ্র বাংলাদেশের আলোচিত নেতা শামীম ওসমান বলেছেন, ‘ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ঐক্য হয়েছে। তিনি ভেবেছেন আমরা স্টুপিড। কারণ তিনি বলছেন ২০ দলের সাথে ঐক্য হয়েছে কিন্তু জামায়াতের সাথে ঐক্য হয় নাই! বিএনপির সঙ্গে ঐক্য হয়েছে কিন্তু তারেক রহমানের সঙ্গে না! তিনি ভেবেছেন আমরা আহাম্মক! আমরা লেমন চুস খাই। কারণ বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান। আমার লজ্জা লাগে। কারণ ছোটকালে তাঁর কোলে পিঠে উঠেছিলাম।

’শনিবার (২৭ অক্টোবর) বিকেলে ইসদাইরে সামসুজ্জোহা স্টেডিয়ামে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্যকালে তিনি  ওই কথা বলেন ।

এছাড়াও জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টের নেতাদের জ্ঞান পাপী আখ্যায়িত করেন এবং তারা দেশ বেচে খেতে চায় দাবি করে শামীম ওসমান বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসের সব থেকে কঠিন সময় আসছে সামনে। তখনই ফয়সালা হবে দেশটা কী আফগানিস্থান হবে নাকি বিশ্বের মধ্যে উন্নয়ণের মাধ্যমে এগিয়ে যাবে।

তিনি বলেন, কিসের উদ্দেশ্যে সমাবেশ? নির্বাচন করার জন্য সমাবেশ ডাকি নাই। সমাবেশ ডেকেছি, প্রস্তুতির জন্য। স্বাধীনতা বিরোধী শত্রুর, শকুনেরা আকাশে উরছে। এ নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের সূতিকাগার। এ নারায়ণগঞ্জ জাগলে বাংলাদেশ জাগে। আমরা গর্বিত সামসুজ্জোহা সাহেবের জন্য, আমরা গর্বিত হই গোলাম সারোয়ারের জন্য, আমরা গর্বিত হই চুনকার জন্য। তাই মুক্তিযুদ্ধের একজন সন্তান হিসেবে আহবান জানাচ্ছি, প্রস্তুত হোন, ওরা থাবা মারার আগেই।

তিনি আরো  বলেন, ‘ওরা নির্বাচনের জন্য জোট করেনি। এর ভিন্ন চিত্র। কারণ নারায়ণগঞ্জে পার্টি সেক্রেটারী ওবায়দুল কাদেরের গণসংযোগ ছিল। সেদিন তিনি আসেনি। অথচ সেদিন নারায়ণগঞ্জের মুন্সীখেলায় বাসে চড়ে সন্ত্রাসীরা আসছিল। বাস থামানোর কারণে পুলিশকে গুলি করে দেয়। এটা ছিল পরিকল্পিত। কারণ একটি মটরসাইকেলে করে ৪জন পালিয়ে যায়।’

ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি এম সাইফুল্লাহ বাদলের সভাপতিত্বে জনসভায় আরো উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি এড. ওয়াজেদ আলী খোকন, সহ সভাপতি চন্দন শীল, যুগ্ম সম্পাদক শাহ্ নিজাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এম শওকত আলী, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি মজিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াছিন মিয়া, বন্দর থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি এম এ রশিদ, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী প্রফেসর শিরিন বেগম, মহানগর মহিলা আওয়ামীলীগের সবানেত্রী ইসরাত জাহান স্মৃতি, শহর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু ভূইয়া,  সাবেক সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভার  প্রশাসক ও আওয়ামীলীগ নেতা মতিন প্রধান, মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি মো. জুয়েল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধান, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও যুবলীগ নেতা এহসানুল হাসান নিপু,জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাফায়েত আলম সানি, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আজিজুর রহমান আজিজ, সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল আলম রাফেল প্রধান, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ, সাধারণ সম্পাদক হাসনাত রহমান বিন্দুসহ এমপি শামীম ওসমানের অনুসারী হাজারো নেতাকর্মীবৃন্দ৷