1. admin@ajkernarayanganj.com : admin :
বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ০১:২৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :

গণভবণে গিয়ে শোকজ পেলেন ডা.আবু জাফর চৌধুরী বিরু

আজকের নারায়নগঞ্জ ডেস্ক :
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০২৩
  • ১২২২ বার পঠিত
আজকের নারায়ণগঞ্জ ডেস্ক: গণভবনে মতবিনিময়সভায় অংশ নিয়ে কারণ দর্শানোর (শোকজ) নোটিশ পেয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ)অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. আবু জাফর চৌধুরী বিরু। তিনি স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক।গণভবনে গত ২৬ নভেম্বর মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেদিন অন্যদের সঙ্গে ওই চিকিৎসক সভায় যোগ দিয়েছিলেন।
বিএসএমএমইউয়ের রেজিস্ট্রারের সই করা ২৭ নভেম্বরের শোকজ নোটিশে বলা হয়েছে, ‘গত ২৬ নভেম্বর সকাল ১০টায় আপনাকে কর্মস্থলে উপস্থিত পাওয়া যায়নি, যা দক্ষতা ও শৃঙ্খলা অধ্যাদেশের ২(চ) ও ৫(ছ) ধারার পরিপন্থী।
সে কারণে আপনার বিরুদ্ধে কেন আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে না তার কারণ দর্শিয়ে আগামী তিন কর্মদিবসের মধ্যে জবাব দেওয়ার জন্য অনুরোধ করা হলো।’
বুধবার সকালে মুঠোফোনে জানতে চাইলে শোকজের বিষয়ে ডা.আবু জাফর চৌধুরী বিরু বলেন, ‘আমরা যারা মনোনয়নপত্র কিনেছি তাদের ২৬ নভেম্বর গণভবনে ডাকা হয়েছিল। আমার মনে হয়, কর্তৃপক্ষ সেটি জানত না। জানলে শোকজ করার কোনো কারণ দেখি না। তবে আমাদের উচিত ছিল কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে যাওয়া। আমরা জবাব দিয়েছি। তবে এখন পর্যন্ত কোনো সাড়া পাইনি।’ এভাবে রেজিস্ট্রারের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আমাদের শোকজ করা খুবই দুঃখজনক।’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নিয়ম না থাকলেও দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে চেয়ে বিএসএমএমইউয়ের অন্তত ১০ জন চিকিৎসক মনোনয়নপত্র কিনেছিলেন। তাঁদের প্রত্যেকে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের বিভিন্ন পদে রয়েছেন।শোকজ নোটিশের বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘চিকিৎসকদের কর্মস্থলে পাওয়া না গেলে আমরা শোকজ করি। যদি সন্তোষজনক জবাব না দিতে পারে সে ক্ষেত্রে বেতন কাটি। এ রকম কিছু নিয়ম আমাদের রয়েছে। এটা মূলত শৃঙ্খলা রক্ষার একটি অংশ।’
তা ছাড়া গণভবনে গিয়েছেন সন্দেহে কর্মস্থলে উপস্থিত থাকা সত্ত্বেও আরেক চিকিৎসককে শোকজ নোটিশ দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।এই পাঁচজনই দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার জন্য মনোনয়নপত্র কিনেছিলেন। তাঁরা সবাই স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের বিভিন্ন পদে রয়েছেন।
Facebook Comments Box
এই জাতীয় আরও খবর